বাংলাদেশ

হারিয়ে যাচ্ছে গ্রাম বাংলার চিরায়ত ঐতিহ্য কুটির শিল্প 

  দেশান্তর প্রতিবেদন ৪ মে ২০২১ , ৩:৪৯:৫৬

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ আবহমান বাংলার চিরায়ত ঐতিহ্য গ্রাম বাংলা চিরচেনা, চির পরিচিত সামগ্রী আর হাতে তৈরি সৌখিনতা সৌন্দর্য আর নিত্য প্রয়োজনীয় সামগ্রী খ্যাত কুটির শিল্প বিলুপ্তির পথে।

একদা গ্রামের ঘরে ঘরে হাতে তৈরির নিত্য প্রয়োজনীয় সামগ্রীর উপস্থিতি প্রাত্যক্ষ করা গেলে ও যন্ত্রচালিত,আধুনিক যুগ জামানার এই সময়ে গ্রামীণ ঐতিহ্যের রকমারী সামগ্রীকে তাড়িত করে যন্ত্রচালিত তৈরি পন্য দখল করে নিয়েছে। প্লাস্টিক, স্পাত,লোহা,আর নানান ধরনের প্রযুক্তি নির্ভর সামগ্রী দখল করে নিয়েছে কুটির আর হস্তশিল্পের স্থান।

গ্রামীণ জনপদের অতি পরিচিতি কুলা,ঝুড়ি, ধামা,দিনে দিনে সৃতি হতে চলছে,গ্রামের মা বোনেরা এক সময় কাঁথা সেলাই করে জীবন নির্বাহ করলে ও আধুনিক তার এই যুগে কাঁথার কদর নেই, কাঁথার স্হানে যন্ত্রচালিত মেশিনে তৈরি বেডসিট,হাতে তৈরি চেটাই ও হারিয়ে গেছে স্থান দখল করেছে প্লাস্টিকের বিছানা।গ্রামীণ জনপদে এক সময় হাক দিয়ে জানান দিত কুলা,ঝুড়ি ধামা,পালি,বিক্রির কথা আবার সারাই করার কথাও শোনাতে কিন্তু সময়ে ব্যবধানে আর ব্যস্তবতার নিরিকে গ্রামে গ্রামে হাক দেওয়ার দৃশ্য নেই।

মৎসা শিকারের অন্যতম মাধ্যম জাল তৈরি হয় বর্তমানে মেশিনে, গ্রামীণ ভাষার খেপলা জাল বর্তমান সময়ে মেশিনে তৈরি হচ্ছে। মৎস্য শিকারীরা এক সময় বাঁশের কুতি এবং চেটার তৈরি ছিপ,সুতাই বর্তমান সময়ের মৎস্য শিকারের অন্যতম মাধ্যম। গরুর গাড়ী গ্রামের মেঠো পথের বিশেষ যাবাহন হিসেবে বিবেচিত ছিল।গ্রামে গ্রামে পন্য আনা নেওয়া কাছে যাতায়াত এবং যোগাযোগ ব্যবস্হার ক্ষেত্রে গরু গাড়ী অনবদ্য ভূমিকা রাখলে ও বর্তমানে সময়ে নাই।

কিন্তু বর্তমানে সময়ে চাষাবাদ গরুর লাঙ্গল এর পরিবর্তে যন্ত্রচালিত বাহনই জমিচাষ করছে, ধান মাড়াই করার জন্য ছিল গরুর উপস্থিতি কিন্তু যন্ত্রচালিত যুগে গরু না ধান মাড়াই করার জন্য আধুনিক যন্ত্রের আবিষ্কার এবং উপস্থিতি ধান মাড়াই করছে। গ্রামের মাদের অতি পরিচিতি ঢেঁকি হারিয়ে গেছে, একদা গ্রামের মা বোনেরা ঢেঁকির মাধ্যমে ধান মাড়াই করে চাল তৈরি করতো। কিন্তু বর্তমানে সময়ে গ্রাম বাংলার সব বৈশিষ্ট্য হারিয়ে গেছে। গ্রাম বাংলা বিবাহ মানেই পালকি সেই পালকি আজ সৃতি খাতায় হাতড়াতে হচ্ছে।

গ্রামে গ্রামে বেয়ারারা পালকি চড়িয়ে নববধূকে নাচিয়ে গাইয়ে ঘরে ফিরত,গ্রামের শিশু কিশোররা পালকির পিছে পিছে হাটতো।সেই অনন্যা আসাধারণ দৃশ্য লুকায়িত , নির্বাসিত,নিকট অতীতেও হারিকেন অস্তিত্ব ছিল,বিদ্যুৎতের উপস্থিতি আর আলো ঝলমলে যুগে জামানায় হারিয়ে যেতে বসেছে হারিকেন। এক সময়ে গ্রামে গ্রামে হুক্কার উপস্থিতি ছিল, গ্রামীণ জনসাধারণ হুক্কা টেনে অলস সময় পর করলেও সেই হুক্কার অস্তিত্ব বিপন্ন , বাই সাইকেলের পিছে বিশেষ ধরনের আরাম দায়ক বস্তু লাগিয়ে যাত্রাবহন করার চিরচেনা দৃশ্য হারিয়ে গেছে। নওগাঁ গ্রামীণ জনপদের ঐতিহ্য আর কুটির শিল্প হারিয়ে যেতে বসেছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

আরও খবর 34

Sponsered content