বাংলাদেশ

রাজশাহীতে পরিবহন ধর্মঘটের দ্বিতীয় দিন, বিপাকে যাত্রীরা

  দেশান্তর প্রতিবেদন ২ মার্চ ২০২১ , ৯:৩০:৪৮

রাজশাহীতে পরিবহন ধর্মঘটের দ্বিতীয় দিন

রাজশাহীতে আজ মঙ্গলবার(২ মার্চ) বিএনপির মহাসমাবেশকে কেন্দ্র করে সারা দেশ জুড়ে পরিবহন রুট বন্ধ করে দিয়েছে পরিবহন শ্রমিকরা। এতে বিপদে পড়েছেন রাজশাহীর বাইরের প্রান্ত থেকে অবস্থান করা যাত্রীরা। ফিরে যেতে পারছেন না ঢাকা সহ অন্যান্য গন্তব্যস্থলে। কাজে বিঘ্ন ঘটছে, চরম দূর্ভোগে পড়ছেন সাধারণ যাত্রীরা।

তবে, পরিবহন শ্রমিকরা ধর্মঘটের কারণ হিসেবে তুলে ধরছেন অন্য ঘটনা। তাদের দাবি, বগুড়ায় সংঘর্ষে এক পরিবহন শ্রমিককে মারধর করায় তাদের এই বাস ধর্মঘট।

কারণ অনুসন্ধান করে জানা গেছে ভিন্ন ঘটনা। আজ মঙ্গলবার রাজশাহীতে বিএনপির বিভাগীয় মহাসমাবেশ অনুষ্ঠিত হবার কথা রয়েছে। মূলত এটিকে সামনে রেখেই বাসগুলো যাতে ভাঙচুর বা কোনরকম ক্ষতির মুখোমুখি না হয় তাই এই ধর্মঘট। বিএনপির নেতাদের সাথে কথা বলে জানা যায়, বিভাগীয় সমাবেশ যাতে পণ্ড হয় তাই ধর্মঘট ডাকা হয়েছে।

এদিকে, সারাদেশের সাথে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হওয়ায় দূর্ভোগে পড়া যাত্রীদের গুণতে হচ্ছে কয়েকগুণ ভাড়া। বিকল্প যানবাহন বেছে নিচ্ছেন অনেকে। সিএনজি, মাইক্রোবাসে দ্বিগুণেরও বেশি ভাড়া দিয়ে যাত্রা করছেন গন্তব্যস্থলে।

বাস বন্ধ প্রসঙ্গে রাজশাহী জেলা মোটর শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক মাহাতাব হোসেন চৌধুরী বলেন, বগুড়ায় পরিহন শ্রমিক ইউনিয়নের বিভাগীয় আঞ্চলিক কমিটির একটি প্রতিবাদ সভা ছিল গত ১৪ ফেব্রুয়ারি। সেখানে একটি সন্ত্রাসী বাহিনী হামলা চালায়। চারটি মোটরসাইকেল পুড়িয়ে দেয়া হয়, গাড়ি ভাঙচুর করা হয়। এর প্রতিবাদে সেদিনই ধর্মঘটের সিদ্ধান্ত হয়। কিন্তু মাঝে পৌরসভা নির্বাচনের জন্য ধর্মঘট শুরু করা হয়নি। নির্বাচন শেষ হওয়ামাত্র ধর্মঘট শুরু হয়েছে। হামলাকারী সন্ত্রাসীরা গ্রেপ্তার না হওয়া পর্যন্ত বাস বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে বলেও দাবি করেন তিনি।

অবশ্য রাজশাহী বাস মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মতিউল হক টিটো বলেছেন, বিএনপির বিভাগীয় সমাবেশকে কেন্দ্র করে তারা সড়কে বিশৃঙ্খলার আশঙ্কা করছেন। গাড়ি ভাঙচুর করা হতে পারে বলেও তাদের আশঙ্কা। আর তাই শ্রমিকের জীবন ও যানবাহনের নিরাপত্তার জন্য বাস বন্ধ করা হয়েছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

আরও খবর 34

Sponsered content