fbpx
সংবাদ শিরোনাম
মেহেরপুরের সাহিত্যিক মোঃ নুর হোসেন শব্দ কথায় সৃষ্টি করে চলেছেন সাহিত্যের নানান আদিত্য তাকবিরে তাশরিক কখন কিভাবে? সূনয়না বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় প্রেস ক্লাবের সভাপতি জয়নাল,সাধারণ সম্পাদক শাহাদাত  Making The World A Better Place স্লোগানে তরুণ নেতৃত্ব তৈরি করছে  ইউপিজি ক্ষুদ্র উদ্যোক্তাদের উন্নয়নে নতুন করে পদক্ষেপ নেওয়ার সময় এসেছে- শিল্পমন্ত্রী বেনাপোলে দুই দেশের উচ্চ পর্যায়ের কর্মকর্তাদের কর্মশালা অনুষ্ঠিত বাংলাদেশ-ভারত বন্ধুত্ব সকল স্বার্থের উর্ধ্বে – পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় প্রতিমন্ত্রী পাইকগাছায় উপজেলা নির্বাচনে বিজয়ী হলেন যারা উত্তরা আজমপুরে ডিএনসিসি’র উচ্ছেদ অভিযান; নেতৃত্বে মেয়র মোঃ আতিকুল ইসলাম

মেহেরপুরের গাংনীতে লকডাউন বাস্তবায়নে সেনাবাহিনী ও বিজিবির টহল জোরদার

                                           
রাব্বি আহমেদ
প্রকাশ : শুক্রবার, ২ জুলাই, ২০২১

সরকার ঘোষিত কঠোর লকডাউনের দ্বিতীয় দিন ছিল শুক্রবার। দ্বিতীয় দিনে মেহেরপুরের গাংনীতে লকডাউন বাস্তবায়নে পুলিশের পাশাপাশি,স্থানীয় জনপ্রতিনিধি,সেনাবাহিনী,বিজিবি ও আনসার বাহিনীর টহল ছিল জোরদার ।

শুক্রবার সকাল থেকে দিনব্যাপি পুলিশ,সেনাবাহিনী-বিজিবি ও আনসার বাহিনীর সদস্যরা গাংনী উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় লকডাউন বাস্তবায়নে সচেতনতামূলক অভিযান পরিচালনা করে।

অভিযানে অংশগ্রহণ করেন মেহেরপুর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও গাংনী উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এমএ খালেক, গাংনী উপজেলা নির্বাহী অফিসার মৌসুমী খানম,গাংনী পৌরসভার মেয়র আহম্মেদ আলী,গাংনী থানার অফিসার ইনচার্জ বজলুর রহমান। এছাড়াও অভিযানে কয়েকজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট অংশগ্রহণ করেন।

লকডাউনের দ্বিতীয় দিনে গাংনী উপজেলা শহর,বামন্দী,ছাতিয়ান,বাওট,কাজীপুর,তেঁতুলবাড়ীয়া,মহাম্মদপুর,হােগলবাড়ীয়া,কসবা-ভাটপাড়া, সাহারবাটী, রামনগর, ভবানীপুর, কাজীপুর গােলাম বাজার, হাড়াভাঙ্গা, সাহেবনগর, করমদী, হিজলবাড়ীয়া, হিন্দা, মাইলমারী, নওয়াপাড়া, ভাটপাড়া, বাঁশবাড়ীয়া, গাঁড়াবাড়ীয়া, গাঁড়াডােব, পােড়াপাড়া, জুগিন্দা, চিৎলা, দিঘলকান্দি, ধানখােলা, হাড়িয়াদহ, গােপালনগর, আড়পাড়া, রাইপুর, মড়কা, জুগিরগােফা, হেমায়েতপুর, আমতৈল মানিকদিয়া ,চাঁদপুর, শানঘাট, বেড়, চান্দামারী, কসবা, সহড়াবাড়িয়া, জােড়পুকুরিয়া, চেংগাড়া, তেরাইল, ভরাট, দেবীপুর,পূর্ব মালসাদহসহ বিভিন্ন আঞ্চলিক বাজারের ওষধ ও খাদ্য সামগ্রীর দোকান বাদে সকল ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ ছিল। মানুষের চলাচল ছিল সীমিত।

এদিকে লকডাউনের কারণে বিশেষ করে শহর কেন্দ্রীয় ভ্যান,রিক্সা ও সিএনজিসহ অন্যান্য যানবাহনের চালকরা পড়েছে বিপাকে। জেলার অধিকাংশ যানবাহন চালকদের জীবিকা নির্বাহ হয় যান চলাচলের উপর নির্ভর করে। কিন্তু লকডাউনের কারণে তাদের সংসার চালানো কষ্টকর হয়ে পড়েছে। তবে ইতােমধ্যে সরকারী ভাবে বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার মানুষদের খাদ্য সামগ্রী দেয়ার লক্ষে তালিকা তৈরী প্রস্তুতি প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

শহরে লকডাউন কার্যকর হলেও গ্রামাঞ্চলের মানুষ লকডাউন পালনে অনিহা দেখাচ্ছে। গ্রামাঞ্চলের মানুষ রীতিমত মাঠে-ঘাটে কাজ করে বেড়াচ্ছে। গ্রামের খেটে খাওয়া মানুষের অভিযোগ লকডাউন পালন করতে হলে,খাদ্য অভাবে না খেয়ে মরতে হবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন


এই বিভাগ থেকে পড়ুন