fbpx
সংবাদ শিরোনাম
ফল প্রকাশে অটোমেশন প্রক্রিয়ার উদ্বোধন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রলীগের সংঘর্ষ: ১ জনকে হলত্যাগ ও ২ জনের ছাত্রত্ব বাতিলের সুপারিশ শার্শায় ফসলি জমির মাটি বিক্রির সিন্ডিকেট বেপরোয়া, জড়িত খোদ ইউপি সদস্যরা পাইকগাছায় ঘূর্নিঝড় রেমালের প্রভাবে নদ-নদীতে পানি বৃদ্ধি : মারাত্মক ঝুঁকিতে ২টি ভেড়িবাঁধ স্বতন্ত্র বেতনস্কেল প্রবর্তনের দাবিতে নোবিপ্রবি শিক্ষক সমিতির মানববন্ধন রাবিতে প্রথমবারের মতো ‘ইনোভেশন শোকেসিং’ অনুষ্ঠিত জবির ফিচার, কলাম অ্যান্ড কনটেন্ট রাইটার্সের নেতৃত্বে মুনতাহা-শাহরিয়ার উচ্চশিক্ষা নিয়ে রাবিতে সেমিনার অনুষ্ঠিত শ্রেষ্ঠ উদ্ভাবনী উদ্যোগের জন্য নির্বাচিত দপ্তর-সংস্থার মাঝে শিল্পমন্ত্রীর সনদ বিতরণ রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে সর্বজনীন পেনশন নীতিমালা প্রত্যাহারের দাবিতে শিক্ষক সমিতির মানববন্ধন

বর ফেলে পালালেন বরযাত্রীরা

                                           
মেহেরপুর প্রতিনিধি
প্রকাশ : সোমবার, ৪ অক্টোবর, ২০২১

বিয়ে উপলক্ষে বর ও কনের বাড়িতে চলছিল প্রস্তুতি। বিয়ের দিনক্ষণ ঠিক হওয়ার পর উভয় পক্ষ আত্মীয়স্বজনদের আমন্ত্রণও করেন। তবে বর-কনে যে শিশু, তা সবার জানা ছিল না।বিয়েবাড়িতে এসে সবাই বিষয়টি জানতে পারেন। পরে প্রশাসনের উপস্থিতি টের পেয়ে বর-কনে রেখে পালিয়ে যান বরযাত্রী ও অতিথিরা। রবিবার রাতে মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার একটি গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

বাল্য বিয়ে বন্ধের অভিযানে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের উপস্থিতি টের পেয়ে বর ফেলে পালিয়েছে বরযাত্রি। অল্প বয়সে মেয়ের বিয়ে দেয়ার অপরাধে কণের পিতাকে জরিমানা করেছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। বিয়ে বন্ধে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন নির্বাহী ম্যজিস্ট্রেট ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার মৌসুমী খানম। রোববার রাত ১০ টার সময় মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার লক্ষীনারায়নপুর ধালা গ্রামে মুখরোচক এঘটনা ঘটে।

স্থানীয় সুত্রে জানাগেছে, গাংনী উপজেলার বাঁশবাড়িয়া গ্রামের ইদিস আলীর ছেলে নয়ন হোসেন (১৬) এর সাথে লক্ষীনারায়নপুর ধলা গ্রামের সাইকেল মিস্ত্রি রাজুর সপ্তম শ্রেনীরে পড়ুয়া শিশু কণ্যা আজমিরা খাতুন(১৪) বিয়ের আয়োাজন চলছিল। বর ও বরযাত্রিতে বিয়ে বাড়ি সরগরম। রান্না বান্নার কাজও শেষ। এমন সময় গাড়ির শব্দ। শব্দ শুনেই বর ফেলে পালিয়ে যাায় বরযাত্রি। উপজেলা নির্বাহী অফিসার মৌসুমী খানম ও পুলিশের একটি টীম ঘটনাস্থলে পৌঁছে কণের পিতা রাজুকে বাল্য বিবাাহ নিরোধ আইন ২০১৭ এর ৮ ধারায় ২০০০ টাকা জরিমানা করেনএ নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট । এবং উভয় পরিবারকে বিয়ে না দেয়ার জন্য সতর্ক করা হয়। বর নয়নকে বিয়ে না করার শর্তে ছেড়ে দেয়া হয়।

এসময় স্থানীয় সাবেক ইউপি সদস্য আতিয়াার জানান, রাজুর মেয়ে আজমিরাা খাতুনের বিয়ে হচ্ছিল । এ ্সময় ইউএনও’র উপস্থিতি টের পেয়ে বরযাত্রি পালিয়ে যায়। বিষয়টি এলাকায় মুখরোচক হয়ে উঠেছে।

কাথুলী ইউপি’র মহিলা সদস্য মোছাঃ সুফিয়া খাতুন বলেন, সরকারি নিষেধ অমান্য করে বাল্য বিয়ে দেয়ার অপরাধে কনের বাবার জরিমানা করেছে। এসময় বর ফেলে পালিয়ে গেছে বরযাত্রি। বিষয়টি এলাকায় একটি আলোচিত ঘটনা বলেও জানান তিনি।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মৌসুমী খানম বলেন, সমরকারি আইন অমান্য করে বাল্য বিয়ে দেয়ার অপরাধে কণের পিতার জরিমানা করা হয়েছে এবং বাল্যবিয়ে দেওয়া যাবে না, এই মর্মে মেয়ের মা-বাবার কাছ থেকে মুচলেকা নিয়ে তাঁদের ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। বাল্যবিবাহের বিষয়ে উপজেলা প্রশাসন কঠোর অবস্থানে রয়েছে বলেও জানান তিনি।

সংবাদটি শেয়ার করুন


এই বিভাগ থেকে পড়ুন