fbpx
সংবাদ শিরোনাম
মেহেরপুরের সাহিত্যিক মোঃ নুর হোসেন শব্দ কথায় সৃষ্টি করে চলেছেন সাহিত্যের নানান আদিত্য তাকবিরে তাশরিক কখন কিভাবে? সূনয়না বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় প্রেস ক্লাবের সভাপতি জয়নাল,সাধারণ সম্পাদক শাহাদাত  Making The World A Better Place স্লোগানে তরুণ নেতৃত্ব তৈরি করছে  ইউপিজি ক্ষুদ্র উদ্যোক্তাদের উন্নয়নে নতুন করে পদক্ষেপ নেওয়ার সময় এসেছে- শিল্পমন্ত্রী বেনাপোলে দুই দেশের উচ্চ পর্যায়ের কর্মকর্তাদের কর্মশালা অনুষ্ঠিত বাংলাদেশ-ভারত বন্ধুত্ব সকল স্বার্থের উর্ধ্বে – পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় প্রতিমন্ত্রী পাইকগাছায় উপজেলা নির্বাচনে বিজয়ী হলেন যারা উত্তরা আজমপুরে ডিএনসিসি’র উচ্ছেদ অভিযান; নেতৃত্বে মেয়র মোঃ আতিকুল ইসলাম

উত্তরা আজমপুরে ডিএনসিসি’র উচ্ছেদ অভিযান; নেতৃত্বে মেয়র মোঃ আতিকুল ইসলাম

                                           
দেশান্তর ডেস্ক
প্রকাশ : সোমবার, ১০ জুন, ২০২৪

উত্তরা আজমপুর রেললাইন সংলগ্ন দক্ষিণ আজমপুর জামতলা এলাকায় রাস্তার উপরের অবৈধ ২৫টি দোকান উচ্ছেদ ও ৬টি বহুতল ভবনের অবৈধ অংশ ভেঙে দিয়েছে ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন (ডিএনসিসি)।

সোমবার (১০ জুন) দুপুর আড়াইটায় এই উচ্ছেদ অভিযান শুরু হয়। উচ্ছেদ অভিযানে উপস্থিত ছিলেন ডিএনসিসি মেয়র মোঃ আতিকুল ইসলাম। ডিএনসিসি মেয়রের উপস্থিতিতে অভিযান পরিচালনা করেন ডিএনসিসির প্রধান সম্পত্তি কর্মকর্তা ড. মোহাম্মদ মাহে আলম এবং নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মাহমুদুল হাসান।

সাংবাদিকদের মতবিনিময়কালে ডিএনসিসি মেয়র বলেন, ‘দক্ষিণখান ও উত্তরখান এলাকার সরু রাস্তা ও জলাবদ্ধতা প্রধান দুটি সমস্যা। এই এলাকার রাস্তা প্রশস্তকরণ ও জলাবদ্ধতা নিরসনের জন্য ড্রেনেজ নির্মাণ প্রকল্প চলমান। সবার দাবি যেন দ্রুত এই দুটি সমস্যা সমাধান করা হয়। কিন্তু রাস্তা প্রশস্তকরণের জন্য মানুষ জায়গা ছাড়ছে না। জলাবদ্ধতা দূর করার জন্য ড্রেনেজ নির্মাণ করা যাচ্ছে না। অবৈধভাবে ভবন নির্মাণ করে রেখেছে। জলাবদ্ধতা নিরসন এবং রাস্তা প্রশস্তকরণের লক্ষ্যে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ চলতে থাকবে।’

মেয়র বলেন, ‘রাজউক থেকে যখন অনুমোদন নিয়েছে প্রতিটি রাস্তা ২০ ফুট প্রশস্ত দেখানো হয়েছে। কিন্তু ভবন নির্মাণের সময় বেশিরভাগই রাস্তা দখল করে নির্মাণ করেছে। রাজউকেত সাথে সমন্বয় করে এগুলো চিহ্নিত করা হচ্ছে। নতুন ওয়ার্ডের অন্তর্গত এই এলাকার জলাবদ্ধতা নিরসন ও অন্তত ২০ ফুট প্রশস্ত রাস্তা নির্মাণ না করলে স্থায়ী সমাধান হবে না। ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য টেকসই সমাধান করে উন্নয়ন করতে হবে। এই এলাকায় বহু লোকের বসবাস। দিন দিন জনসংখ্যা বেড়েই চলেছে। অতএব পরিকল্পিত টেকসই উন্নয়নের বিকল্প নেই। রাস্তা অন্তত ২০ ফুট প্রশস্ত না হলে সিটি কর্পোরেশন থেকে কোন বরাদ্দ দেয়া হবে না।’

দখলদারদের হুশিয়ারি দিয়ে মেয়র বলেন, ‘আমি গত সপ্তাহে ৩দিন এই এলাকা পরিদর্শন করেছি। আমি ঘোষণা দিয়েছিলাম অবৈধ দখল সরিয়ে নিন, ৯ জুনের পরে উচ্ছেদ অভিযান করবো। এর আগে স্থানীয় সংসদ সদস্য এবং কাউন্সিলররা বার বার রাস্তার উপরে অবৈধভাবে গড়ে তোলা অংশ ভেঙে নেয়ার জন্য আহবান জানিয়েছেন। কিন্তু তারা এগুলো সরিয়ে নেন না। আমি অবৈধ দখলদারদের আর কোন বৈধ নোটিশ দিব না। নিজ দায়িত্বে না সরালে আমাদের ম্যাজিস্ট্রেটরা বুলডোজার চালিয়ে অবৈধ স্থাপনা ভেঙে দিবে।’

উচ্ছেদ অভিযানকালে আরও উপস্থিত ছিলেন ঢাকা-১৮ আসনের সংসদ সদস্য খসরু চৌধুরী, ডিএনসিসির আঞ্চলিক নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ সাদেকুর রহমান, ৫০ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর ডি.এম.শামিম এবং সংরক্ষিত আসনের নারী কাউন্সিলর জাকিয়া সুলতানা প্রমুখ।

সংবাদটি শেয়ার করুন


এই বিভাগ থেকে পড়ুন